Business is booming.

কর্মীদের উন্নয়নের বার্তা মানুষের কাছে পৌঁছানোর নির্দেশ শুভেন্দুর

স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: আসন্ন পঞ্চায়েত ভোটের প্রচার পর্ব শুরু হতে না হতেই জোড় কদমে শুরু হয়ে গিয়েছে আসন দখলের লড়াই৷ আর সেই বিষয় এবার কর্মীদের উপদেশ দিলেন পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী৷

তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকার বাংলায় যে উন্নয়ন করেছে, সেই উন্নয়নের বার্তা সাধারণ মানুষের কাছে তুলে ধরলেই আমরা সব আসনে জয়লাভ করব।’ তাই কর্মীদের উন্নয়নের বার্তা তুলে ধরে সাধারণ মানুষের কাছে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। রবিবার সন্ধ্যায় নিমতৌড়ির পানপোস্তা কর্মীসভায় এমনটাই জানিয়েছেন পরিবহণ মন্ত্রী৷

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলায় বিরোধীরা যতই কুৎসা করুক না কেন মানুষ আমাদের সঙ্গে রয়েছে।’ বর্তমান নির্বাচন পরিস্থিতি নিয়ে মন্ত্রী ২০১৩-এর কথা কর্মীদের সামনে তুলে ধরে বলেন, ‘২০১৩ সালে মীরা পান্ডেকে ভুল বুঝিয়ে একটি অস্থির আবহ তৈরি করা হয়েছিল। সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশে ৫ দফায় পবিত্র রমজান মাসে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করে ভোট করা হয়েছিল। সেই ভোটে লড়াই করে তৃণমূল কংগ্রেস ৮০ শতাংশ ভোটে জয়লাভ করেছিল। তৃণমূলকে জনবিচ্ছিন্ন প্রমাণিত করার চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছিল বিরোধীদের। এবারও তার ব্যতিক্রম হবে না।’

‘উন্নয়নকে সামনে রেখে আমাদের নির্বাচনে লড়তে হবে। উন্নয়নই এই ভোটের মূল অস্ত্র। আর সেই উন্নয়নের কথা মানুষের কাছে তুলে ধরতে পারলেই আমরা এবার ১০০ শতাংশ ভোটে নির্বাচিত হব।’ রবিবার সন্ধ্যায় নিমতৌড়ির পানপোস্তাতে ত্রিস্তর পঞ্চায়েত নির্বাচনে তমলুক ব্লকে তৃণমূলের প্রার্থীদের সমর্থনে কর্মীসভায় এসে এমনটাই আশা প্রকাশ করলেন পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

পঞ্চায়েত ভোটে বিরোধীদের ভূমিকার সমালোচনা করে মন্ত্রী বলেন, ‘এই রাজ্যের বিরোধীরা শুধুমাত্র খবরের কাগজ, টিভি আর আদালতের বারান্দায় থাকেন। এঁরা মানুষের সুবিধা-অসুবিধার খবর রাখেন না। সকালে উঠে খবরের কাগজ টুকলি করেন আর বিকেলে মিডিয়া ডেকে সন্ত্রাসের কথা বলেন। যাঁদের বুথে-পাড়ায় কর্মী নেই তাঁদের মুখে এসব মানায় না।’

পূর্ব মেদিনীপুরে বিরোধীরা ধরাশায়ী বলে এদিন দাবি করেছেন মন্ত্রী। বলেন, ‘লক্ষ্মণ শেঠের হাত ধরে হার্মাদরা এখন বিজেপি বনেছে। কংগ্রেসও ওদের সঙ্গে মিশে গেছে। বিরোধীরা একত্রিত হয়ে সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলছিল। কিন্তু এ জেলাতে প্রায় সব ব্লকেই ভোটে হচ্ছে। কোথায় তিনটি স্তরে আবার কোথায় দুটি স্তরে। কিছু পঞ্চায়েত এবং পঞ্চায়েত সমিতিতে আমরা বিনা লড়াইয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করেছি। কারণ, ওই সব এলাকায় বিরোধীরা কার্যত জনবিচ্ছিন্ন।’

পাশাপাশি এই দিনের কর্মীসভাতে সিপিএম-বিজেপি এবং কংগ্রেস ছেড়ে আসা শতাধিক মানুষের হাতে তৃণমূলের পতাকা তুলে দেন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী৷ সঙ্গে তিনি আশাবাদী যে এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে যারা তাদের প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছেন তারা ধরাশায়ী হবে৷ কারণ বর্তমান সরকার যে ভাবে উন্নয়ন এই রাজ্যে ছড়িয়ে দিয়েছে তাতে এই বারও আরও একবার আসন দখল করতে চলেছেন তারা৷

©Kolkata24x7 এই নিউজ পোর্টাল থেকে প্রতিবেদন নকল করা দন্ডনীয় অপরাধ৷ প্রতিবেদন ‘নকল’ করা হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে
—-

—-

Loading...
You might also like