Business is booming.

সিন্ডিকেট দিয়ে ছাত্রলীগ চলবে না: কাদের

রোববার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র মিলনায়তনে
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন
কাদের।

নানা ঘটনায় বিতর্কিত ছাত্রলীগকে ‘রাজনৈতিক আদর্শের মহাসড়কে’
ফিরে আসতে বলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন, “আমি চাই ত্যাগী, যোগ্য নেতৃত্ব। কারও পকেটের কমিটি দিয়ে
ছাত্রলীগের নেতৃত্ব হবে না। কোন সিন্ডিকেট দ্বারা ছাত্রলীগ চলবে না। ছাত্রলীগ চলবে
বঙ্গবন্ধুর আদর্শে শেখ হাসিনার নির্দেশনায়। এর বাইরে কোন ভাবনা চিন্তা করার অবকাশ
নেই।”

অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে ছাত্রলীগের
সাবেক এই সভাপতি বলেন, “টাকা-পয়সার কর্মীরা থাকবে না, আদর্শের কর্মীরা থাকবে। জবরদস্তি করে অযোগ্যকে নেতা বানাবেন, দুঃসময় এলে হাজার পাওয়ারের বাতি দিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবে না।

“অনুপ্রবেশকারী পরগাছা যেন পার্টির নেতৃত্বে আর না আসতে
পারে। পরগাছাদের জন্য ছাত্রলীগ কোনো সুযোগ দিবে না। সোহাগ-জাকিরকে বলব, তোমরা ভালো
কিছু করে যাও।”

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন,
যোগ্যতার প্রমাণ দিয়ে নেতৃত্বে আসতে হবে।

তিনি বলেন, “ছাত্রলীগ হল রাজনীতির পাঠশালা। এই রাজনীতির
সিলেবাস তিনটি। সিলেবাস তিনটি হল, ১. অসমাপ্ত আত্মজীবন
২. কারাগারের রোজনামচা ৩. প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জীবনী।”

কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসেন বলেন, “ছাত্রলীগকে
যদি দেহের সাথে তুলনা করা হয়, তবে ঢাবি ছাত্রলীগ
হবে সেই দেহের আত্মা।

“এই সম্মেলনের মধ্য দিয়ে যারা নেতৃত্বে আসবেন, তাদের উচিৎ হবে
যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা-স্বার্বভৌমত্ব নিয়ে ষড়যন্ত্র করে, যারা বাংলাদেশকে পিছিয়ে দিতে চায়, যারা বাংলাদেশকে নিয়ে আবার ১/১১ এর স্বপ্ন দেখে, তাদের
ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে আগামী দিনের বাংলাদেশ গড়ে তোলা।”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বিদায়ী সভাপতি আবিদ আল হাসান
বলেন,
“বঙ্গবন্ধু বিশ্বাস করতেন, রাজনীতি মানুষের জন্য। জাতির পিতার এই আদর্শকে ধারণ করে আমরা নেতৃত্বে আসার পর
‘পড়াশোনার পাশাপাশি রাজনীতি, রাজনীতির পাশাপাশি
পড়াশোনা নয়’
তা বাস্তবায়নের চেষ্টা করেছি।”

বিদায়ী
সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সান্ধ্যকালীন কোর্সগুলো
বন্ধ করার দাবি জানিয়ে তাতে মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সমর্থন চান।

তিনি
বলেন, “আজকে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের আনাগোনা অনেক বেড়ে গেছে। বহিরাগতদের
আনাগোনা বিভিন্ন সময় বিশৃঙ্খল পরিবেশ সৃষ্টি করছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ইভিনিং কোর্সের
মাধ্যমে বহিরাগত বাড়ছে। অবিলম্বে এই ইভিনিং কোর্স বন্ধ করতে হবে, বাণিজ্য বন্ধ করতে
হবে।”

বক্তব্যের আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের প্রকাশিত স্মরণিকার
মোড়ক উন্মোচন ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট উদ্বোধন করেন ওবায়দুল
কাদের।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক
জাহাঙ্গীর কবির নানক ও সাংগঠনিক সম্পাদক এ
কে এম এনামুল হক শামীম।

অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি সোহাগ ঢাকা
বিশ্ববিদ্যালয়ের আবিদ-প্রিন্স নেতৃত্বাধীন কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করেন।

Loading...
You might also like